সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে ধুনট উপজেলা আ’লীগের নতুন কমিটি গঠন

সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে ধুনট উপজেলা আ’লীগের নতুন কমিটি গঠন

স্টাফ রিপোর্টার, ধুনট বার্তা:

প্রবীন নেতাকর্মীদের একের পর এক গণ বহিস্কারে ক্ষুদ্ধ হয়ে ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে ধুনট উপজেলা পরিষদ সড়কে অবস্থিত আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে এই কমিটির ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে মারা যাওয়া ৭ জন সদস্য বাদে ধুনট উপজেলা আওয়ামীলীগের ৬০ জন সদস্যের মধ্যে ৪০ জনই স্বাক্ষর করেন এই নতুন কমিটিতে।

এতে সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে ধুনট উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম সোবাহানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মহসীন আলমকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মনোনীত করা হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে গোলাম সোবাহান বলেন, গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তৃণমূল নেতাকর্মীদেরকে উপেক্ষা করে দলের সভাপতি নূরুন্নবী তারিক ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন টাকার বিনিময়ে নিজেদের পছন্দের লোকজনকে নৌকার মনোনয়ন পাইয়েছে দিয়েছিলেন। তারা অনেক ইউনিয়নেই সম্মানজনক ভোটও পাননি।

এরপর দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিজেদের ইচ্ছেমতো যখন তখন যাকে তাকে অগঠনতান্ত্রিকভাবে  ফেসবুকের মাধ্যমে বহিস্কার করে আসছে। এপর্যন্ত তারা দলের ৫৫ জন ত্যাগি, পরীক্ষিত ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতাকে বহিস্কার করেছেন। যা সম্পূর্ণ অবৈধ ও গঠনতন্ত্র পরিপন্থী।

তিনি বলেন, গত ২০ বছর ধরে গোপালনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন জহুরুল ইসলাম তছু। কিন্তু ত্যাগি ও প্রবীন এই নেতাকে অবৈধভাবে ফেসবুকের মাধ্যমে বহিস্কার করা হয়। এছাড়া ওই ইউনিয়নের বার বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য গোলাম হোসেনকেও তারা একইভাবে বহিস্কার করেছেন। দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক একক সিন্ধান্তে দলটাকে ধ্বংসের দারপ্রান্তে নিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কমিটি বানিজ্য, মনোনয়ন বানিজ্য ও নিয়োগ বানিজ্যে মেতে উঠেছে। তিনি বলেন, গত ১৫ আগষ্ট ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূরুন্নবী তারিক একটি অনুষ্ঠানে তার বক্তব্যে বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধুকে আওয়ামী লীগই খুন করেছে, এরপর বলেন, আওয়ামী লীগের এমপি রাতের এমপি, দিনে হয়েছে, নাকি রাতে হয়েছে এটা সবাই জানে। দলের সভাপতির এমন মন্তব্যের পর থেকেই ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

এছাড়া দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকনের বিরুদ্ধে চাকরি দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাতের ১৭টি মামলা আদালতে দায়ের হয়েছে। তাই টাকার বিনিময়ে দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অগঠনতান্ত্রিক একক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে তাদের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করে ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

নতুন কমিটির রেজুলেশনের কাগজ ও কমিটির কাগজ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ও জেলার নেতৃবৃন্দের কাছে পাঠানো হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, ধুনট উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।